রহস্যময় ভয়নিখের পান্ডুলিপি ।। Mysterious Voynich Manuscript


পান্ডুলিপি কথাটা শুনলেই চোখের সামনে ভেসে উঠে ধুলি ধুসর কত গুলো কাগজের সমষ্টি, যা একজন লেখকের বহু সাধনার ফসল, একজন প্রাকাশকের কাঙ্খিত জিনিস অথবা একজন পাঠকের কৌতুহল, প্রচীন পান্ডুলিপি সংগ্রহ করা বা সংরক্ষন করা অনেকের পেশা। পান্ডুলিপি কিনে চড়া দামে বিক্রি করা এক লাভজনক ব্যাবসাও বটে ।কিছু কিছু পান্ডুলিপি ঘিরে তৈরী হয়েছে অনেক অনেক রহস্যময়তা আর গল্প গাথা। তেমনি এক পান্ডুলিপি "ভয়নিখের পান্ডুলিপি"।


এই পান্ডুলিপি রহস্যময়তার শেষ নেই। ভয়নিখের পান্ডুলিপি পাওয়া যায় আজ থকে ৮৫ বছর আগে। ভয়নিখ ছিলেন নিউ ইয়র্ক শহরের এক পুরানো বই ব্যাবসায়ী। তার নেশা আর পেশা ছিল পুরানো পান্ডুলিপি সংগ্রহ করে পরে সুযোগ মত চড়া দামে বিক্রি করা। আর এভাবেই পুরানো বইয়ের মধ্যে থেকে হঠাৎ করেই ভয়নিখ পেয়ে যান আলোচ্য পান্ডুলিপি। প্রথমে তিনি বুজে উঠতে পারেননি যে ওটা এত আলোচার বিষয় হবে। বিক্রি করে দিলেন। কিন্তূ হাতছাড়া হবার পর বুজতে পারেন এর মূল্য। কিন্তূ ততদিনে রাগে দুঃক্ষে মাথার চুল ছেড়া ছাড়া আর কিছুই করার ছিলনা।


তবে ভয়নিখে লাভের মধ্যে লাভ হয়েছে একটাই পান্ডুলিপির সাথে তার নাম চিরদিনের জন্য জড়িয়ে গেছে। রহস্যময় এই পান্ডুলিপি নিয়ে এত গবেষনা আলোচনা হয়েছে যা বলার মত না। কিন্তূ এত গবেষনা করেও এর মূল রহস্য আজ পর্যন্ত কেউ বের করতে পারেনি। সম্ভব হয়নি এর মুল রহস্য উদ্বার করার। সৃষ্টি হয়েছে নানা গুজব।


গুজবের একটি হল, পান্ডুলিপিটি সে সব রহস্যময় আলকেমিদের কোন একজনের যারা অপরসায়নের মাধ্যমে সোনা তৈরীর চেষ্টা করতেন এবং পান্ডুলিপিতে সেই সোনা তৈরীর গোপন কথা বলে দেয়া হয়েছে। আবার কেউ কেউ মনে করতেন পান্ডুলিপিতে জোতিবিদ্যার কথা লেখা আছে। মহাকাশ বিদ্যার গো্পন রহস্য এই পান্ডুলিপিতে লেখা আছে বলে কেউ কেউ নিঃসন্দেহ। আবার একদল মনে করেন পৃথিবী তৈরীর গুপ্ত কথা এখানে লেখা আছে। যারা আত্না এবং পরোলৌকিকতা নিয়ে নাড়াচাড়া করেন তাদের জোড় দাবী এই পান্ডুলিতে আত্নার গোপন রহস্য, মৃত্যুর ওপারের কথা বলা হয়েছে, আরো লেখা আছে কিভাবে আত্মাকে ডেকে আনা যায় তার পূরো গোপন প্রক্রিয়া।


রহস্য আরো ঘনীভূত হল যখন গবেষনার পর মোটামুটি জানা গেল পান্ডুলিপিটি সত্তরের দশকের বিখ্যাত মধ্যযুগের ইংরেজ রজার বেকনের। বেকন যেহেতু নিজেই রহস্যময় ব্যাক্তি হিসাবে পরিচিত ছিলেন আর নিজেও অনেক রহস্যময়তার জন্ম দিয়েছেন। মধ্যযুগের এই পন্ডিত নাড়াচাড়া করেননি এমন কোন শাখা নেই। পদার্থবিজ্ঞান, গনিত, অপরসায়ন, চিকিৎসা বিজ্ঞান, ভৌত বিজ্ঞান, জোতিষশাস্ত্র সর্বোপরি আধুনিক বিজ্ঞানের এমন কোন শাখা নেই যা নিয়ে তিনি ভাবেননি। বিজ্ঞানের বর্তমান অনেক আবিসস্কার তিনি সেই সত্তর দশকে লিখে রেখে গেছেন তার “মিরাবিলিস” নামক বইয়ে। যেগুলোর অনেক গুলোই পরবর্তিকালে সত্যি বলে প্রমানিত হয়েছে। অনেক ভবিষ্যত বানী করছে নস্ত্রাদামুর মত যা মিলে গেছে। তিনি যে আত্নার সাথে কথা বলতেন এবং তাদের কাছ থেকে ভবিষ্যতের কথা শুনতেন এ কথাও সমসাময়িক অনেকের লেখায় আসছে। আলকেমিষ্টদের সোনা তৈরীর কথা তিনি বিশ্বাস করতেন।


নানারকম বিস্ময়কর ক্ষমতার অধিকরী রজার বেকনের পান্ডুলিপি পাওয়া গেছে শুনে নড়েচড়ে বসলেন গবেষকরা এর অর্থোদ্বারের জন্য। কিন্ত হাজার চেষ্টা করেও তারা “ক” অক্ষর ও বুজতে পারলেন না। কেননা পান্ডুলিপিতে ব্যাবহার করা হয়নি এমন কোন বিষয় নেই। সংখ্যা, ফুল, ফল, জ্যামিতিক নকশা, গ্রহ নক্ষত্র ছবি থেকে পদার্থ, আধুনিক চিকিৎসাশাস্ত্রের এ হেন বিষয় নাই যা তিনি ওই পান্ডুলিপিতে লিখে যাননি। এক মহাদূর্বোধ্য ধাধা।

কিন্তু এই ধাধা দেখেও থেমে থাকলেন না গবেষ্করা, অনেক চেষ্টা চরিত্রর পর যা জানা গেল পান্ডুলিপিটির মূল মালিক ছিলেন রোমান সম্রাজ্যের দ্বিতীয় সম্রাট রুডলফ। রুডলফ জানতেন এটি রজার বেকনের লেখা। তাই তিনি তা যত্নের সাথে সংরক্ষন করেন। ১৬১২ সালে সম্রাট দ্বিতীয় রুডলফ মারা গেলে অনেক হাত ঘুরে সেটি প্রাগ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বিখ্যাত বিজ্ঞানী মার্কাস মার্কির হাতে আসে। তিনি তা অত্যান্ত যত্নের সাথে সংরক্ষন করেন। ১৬৬৬ সালের কথা । মার্কির শিক্ষাগুরু বিখ্যাত বিজ্ঞানী অ্যামেনসিয়াস কির্চার কে মার্কির একটি চিঠি থেকে স্পষ্ট বুজা যায় পান্ডুলিপিটি সত্যি রজার বেকনের।

এরপর ইতালির রোম থেকে ১৬ মাইল দূরে সিসোরোর প্রাসাদের ধবংসাবশেষের মধ্যে থেকেই সম্ভবত আত্নপ্রকাশ করে। সুযোগ সন্ধানী ভায়োনিখের দূর্দান্ত নেশার কারনে ওটা স্বাভাবিক ভাবে তার হাতে আসে। অবশ্য প্রচুর টাকার নিলামে। ভয়নিক ওটা বৈধ ভাবেই মনড্রাগন কলেজের কাছ থেকে কিনে নেন ১৯১২ সালে।

ভয়নিখের এই রহস্যময় পান্ডুলিপি নিয়ে অতিসাম্প্রতিক এক গবেষনায় পান্ডুলিপি গবেষক ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়ের রবার্ট ব্রুমবাও আবিস্কার করেন এতে আলকেমীর ওপর বিক্ষিপ্ত কিছু কথা ও আধ্যত্নিক কিছু জটিল সংকেত আছে। যার অনেক কিছুই তিনি বুঝতে পারেন নাই। সম্ভবত অমরত্বের একটা ব্যাপারেও আভাস দেয়া আছে। এত কিছুর পর ও কম্পিউটারের এই উৎকর্ষতার যুগেও ভয়নিখের এই পান্ডুলিপি এখন ও রহস্যের আধার।

ভয়নিখের রহস্যময় প্রাচীন পান্ডুলিপির কয়েকটি পাতার ছবি,


লেখকঃ রেজওয়ানুল শোভন।
সম্পাদনায়ঃ জানা অজানার পথিক।
hybridknowledge.info

২টি মন্তব্য:

জানার কোন অন্ত নাই, জানার ইচ্ছা বৃথা তাই, ভেবে যদি জানার ইচ্ছাকে দমন করে রাখা হয় তবে সে জীবনের কোন অর্থ নাই। কিন্তু সব জানতে হবে এমন কোন কথা নাই, তবে জানার ইচ্ছা থাকা চাই। আমাদের এই জানা জানির ইচ্ছকে সূত্র করে, আমাদের ছোট্ট একটি প্রয়াস ❝আমি জানতে চাই❞। আমাদের জানতে চাওয়ার ইচ্ছা পুরনের লক্ষে কখনো জেনেছি মহাকাশ নিয়ে, কখনো জেনেছি সমুদ্র নিয়ে, কখনো ডুব দিয়েছি কৌতুক এর মাঝে, আবার ভয়ে কেঁপেছি ভুতের গল্প পড়ে, কখনোবা শিউরে উঠেছি কিছু মানুষের কার্যকলাপ জেনে। কখনো জেনেছি নতুন আবিষ্কারের কথা, আবার জেনেছি আদি ঐতিহ্যের কথা, এত সব কিছু করেছি শুধু জানতে চাওয়ার ইচ্ছা থেকে।

hybridknowledge.info hybridknowledge.info